গেমিং ফোন কেনার আগে যে যে বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখবেন (সহজ বিষয়) · MozarTech.com

গেমিং ফোন কেনার আগে যে যে বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখবেন (সহজ বিষয়)


আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা আশা করি আপনারা সকলে ভালো আছেন আজকে যে  নিয়ে হাজির হয়েছি সেটি একটি মোবাইল রিভিউ

 

অনেকেরই গেম অনেক পছন্দ মূল কথা যদি দুবেলা ভাত কপালে নাও জোটে তাহলে গেম খেলতে দিলে ভাতের কথা আর মনে থাকে না

 

তাহলে বুঝতেই পারছেন গেমিং ফোন কতটা কার্যকর এবং গুরুত্বপূর্ণ দেখে শুনে কেনা উচিত

 

গেমিং (Gaming) ফোন (Phone) কিভাবে বা কি ধরনের Gaming Phone কেনা উচিত সে সম্পর্কে আমি বলব

 

গেমিং (Gaming) ফোন (Phone) কেনার আগে বিবেচ্য বিষয়

 

 

১। পারফর্মেন্স

গেমিং (Gaming) ফোনের (Phone) ক্ষেত্রে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এর পারফরমেন্স (Performents)। পারফরমেন্স (Performents) ভালো না হলে গেমিং (Gaming) ফোনের (Phone) কোনও মূল্য নেই। ভালো পারফরমেন্স (Performents) পেতে হলে আপনাকে ৩টি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে।

  • প্রসেসরঃ বাজেট (Bugit) বেশি হলে অবশ্যই High End প্রসেসর নেওয়ার চেষ্টা করুন। প্রসেসরের ক্ষেত্রে Snapdragon কে বেশি প্রাধন্য দিবেন। কেননা, Mediatek হেভি গেমিং (Gaming) এ হালকা হলেও হিটিং হয়, যার ফলে গেমিং (Gaming) এক্সপেরিয়েন্স তেমন ভালো হবে না।
  • স্টোরেজ টাইপঃ গেমিং (Gaming) ফোনে ভালো স্পীড পেতে স্টোরেজ টাইপ অনেক বড় ভূমিকা পালন করে। তাই, ফোন (Phone) নেওয়ার সময় UFS 2.1 বা UFS 3.1 স্টোরেজ নেওয়ার চেষ্টা করবেন।
  • র‍্যাম টাইপঃ অনেকে র‍্যাম টাইপ সম্পর্কে জানেনই না। র‍্যাম টাইপ আপনার ফোনের (Phone) স্পীডে ভালো প্রভাব ফেলে। তাই, সব সময় লেটেস্ট র‍্যাম টাইপে বেশি প্রাধান্য দিবেন।

২। ব্যাটারি (Battery)

পাওয়ারফুল ব্যাটারি (Battery) ছাড়া কোন গেমিং (Gaming) ফোন (Phone) কল্পণা করা যায় না। গেমিংয়ে ব্যাটারির ভূমিকা অপরিসীম আর আপনি যদি দীর্ঘ সময় ধরে গেমিং (Gaming) করেন, তাহলে তো কথাই নেই। গেমিং (Gaming) করতে হলে সর্বনিম্ন 5000mAh ব্যাটারি (Battery) নিবেন। তা না হলে দেখা যাবে ২-৩ ঘণ্টা গেম খেললেই Low battery ওয়ার্নিং দেওয়া শুরু করবে যা বিরক্তিকর একটা বিষয় হয়ে দাঁড়াবে।

 

৩। ফাস্ট চার্জিং

গেমিং (Gaming) ফোনে বড় ব্যাটারি (Battery) থাকার কারণে নরমাল চার্জার দিয়ে চার্জ করতে অনেক সময় লেগে যায়। কিছু কিছু সময় নরমাল চার্জার দিয়ে 5000mAh ব্যাটারি (Battery) চার্জ করে ২ ঘণ্টার বেশি সময় লেগে যায়। তাই, ফোন (Phone) নেওয়ার সময় ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে এই ধরণের ফোন (Phone) নিবেন। তবে, ফাস্ট চার্জার বক্সের ভেতরে থাকলে আরো ভালো।

 

৪। ডিসপ্লে

ভালো গেমিং (Gaming) এক্সপেরিয়ান্সের জন্য ভালো ডিসপ্লে থাকা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাছাড়া, ডিসপ্লে ভালো হলে ব্যাটারি (Battery) সেভিংয়েও হেল্প করে। তাই, ডিসপ্লে সেকশনে Super Amoled ডিসপ্লেকে গুরুত্ব দিবেন। আবার High Refresh Rate সমৃদ্ধ ডিসপ্লে নিলে খুব Smooth গেমপ্লে পাবেন।

 

যে-সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করলাম একটি গেমিং (Gaming) ফোন (Phone) কেনার আগে এই বিষয়গুলো আপনাকে প্রথমে প্রাধান্য দিতে হবে। আরো কিছু বিষয় আছে যেগুলো গেমিং (Gaming) ফোনের (Phone) জন্য গুরুত্বপূর্ণ না অর্থাৎ এতে আপনার গেমিং (Gaming) পারফর্মেন্সে তেমন কোন প্রভাব পড়বে না।

যেমন-

  • ক্যামেরা
  • বিল্ড কোয়ালিটি
  • ডিজাইন

 

 

আর্টিকেলটি যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই শেয়ার করবেন তাদের ভাল গেমিং (Gaming) ফোন (Phone) কেনার এক্সপেরিয়েন্স শেয়ার করবে

 

তবে যেই ফোনটা কিনে থাকবেন সেটি অবশ্যই কমেন্ট করে বলে যাবে তাহলে আমরা রিপ্লে দেবো কি ধরনের ফোন কেনা হলো

আজ এ পর্যন্তই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আল্লাহ হাফেজ

আর্টিকেলটি পড়ার পর কোন মন্তব্য থাকলে নিচে জানান?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *